Unlimited PS Actions, graphics, videos & courses! Unlimited asset downloads! From $16.50/m
Advertisement
  1. Design & Illustration
  2. History
Design

১২ জন আর্টিস্টের চোখে রাজনীতি

by
Length:LongLanguages:

Bengali (বাংলা) translation by Shakila Humaira (you can also view the original English article)

সম্পাদকের নোটঃ Envato Tuts + এই প্রবন্ধের প্রকাশনার মাধ্যমে কোনো বিশেষ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রচার করছে না। এই নিবন্ধটি আধুনিক সময়ের শিল্প ও রাজনীতির মধ্যেকার অন্তর্দৃষ্টি ফুটিয়ে তুলতে ইচ্ছুক।

ইতিহাস টুইট করতে সক্ষম হওয়ার আগে

প্রথম ফটোগ্রাফ বা মন গলিয়ে দেয়া স্ন্যাপচ্যাট গল্পের বহু আগে, এবং অবশ্যই রাষ্ট্রপতির প্রথম টুইটের আগে, এখানে সর্বদাই দ্বিমাত্রিক চিত্রায়ন ছিলো। 

এবং যখন আপনি এটা সম্পর্কে চিন্তা করবেন, এটা আসলেই লজ্জাজনক। কারণ, শিল্প ইতিহাসে যে ভুমিকা রাখে তা আমাদের আধুনিক, গভীর রাত জেগে খবর তৈরি, এবং অজস্র উইকি পেইজকে ছাড়িয়ে যায় এবং যা আমাদের তর্ক বা পত্রিকাকে সমর্থন করে।  

আমরা, একটি অর্থে, অবমুল্যায়িত যা কিনা একসময় আমাদের সংস্কৃতির নির্ধারক চালচিত্র ছিল।

এমনকি আমরা আমাদের পকেটের মুদ্রা নিয়ে, এখনও প্রায়ই ভুলে যাই, মুহূর্ত এবং মানুষকে সময়মত তুলে ধরা শিল্পীদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। 

আমরা প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্টের মুষ্টিবদ্ধ চোয়ালের অভিব্যক্তি কিভাবে পেতাম যদি এটা শিল্পী গিলবার্ট স্টুয়ার্ট এর প্রতিমাসংক্রান্ত তৈলচিত্রে না থাকত?

George Washington Lansdowne Portrait by Gilbert Stuart
গিলবার্ট স্টুয়ার্টের আঁকা ল্যান্সডাউনি পোর্ট্রেইট অব প্রেসিডেণ্ট জর্জ ওয়াশিংটন।

অথবা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল যে একবারে ধ্বংসাবশেষ হয়ে গিয়েছিলো যা ১৮১২ সালে যুদ্ধের সময় ব্রিটিশ আক্রমণের নিদর্শন বহন করে।

US Capital During War of 1812
১৮১২ সালের যুদ্ধের সময় জর্জ মুঙ্গারের আঁকা ইউএস ক্যাপিটলের কালি ও জলরঙের চিত্র। 

আপনি দেখতে পাবেন যে, জর্জ মুঙ্গার এবং গিলবার্ট স্টুয়ার্ট একটি সৃজনশীল একাকী মিশন চালু করেছিলো যাতে এই কেন্দ্রগত চিত্রগুলো মানুষ কখনই না ভুলে এবং লোকচক্ষুর আড়ালে থেকে না যায়।

আজকাল, টেকনোলোজি আমাদের তথ্যপ্রাপ্তি ও এর নির্ভুলতা যাচাইয়ের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে এতে কোনও সন্দেহ নেই।

কিন্তু শিল্প এখনও এবং সবসময় মানুষের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ও সমস্যা সমুহের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিফলন হতে পারে। এবং কোন ব্যাপার যত সূক্ষ্ম বা বেহায়া বা বিতর্কিত হউক না কেন, আর্টিস্টরা এক তুলির আঁচড়েই বিশ্বের যুদ্ধ বিগ্রহ থেকে শুরু করে সবকিছু ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম।

তাই আজকে আমি ১২ জন আশ্চর্যজনক শিল্পীকে তুলে ধরবো যাদের কাজ অবিশ্বাস্য অনুমেয় বিষয় সমূহের ব্যাপারে জোরালো ভাবে কথা বলছে। 

কোন জিনিসটা পরবর্তীতে ইতিহাসের আইকনিক ইমেজ হবে? কে জানে...

চলুন বিশ্বের রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক ইস্যু সম্পর্কে একজন আর্টিস্টের চোখ দিয়ে জানতে চেষ্টা করি।

কে আসলে বিজয়ী...সত্যিকারভাবে?

২০১৬ ইলেকশনটি, অনেকের কাছে একটি পুরনো ব্যান্ড বন্ধ হওয়ার মত। এবং যত দ্রুত এটি পার হয়েছে, আমরা এর অবশ্যম্ভাবী ফলাফলের দিকে যাচ্ছি। কেউ কেউ আমেরিকান ইতিহাসের জন্য একটি স্মরনীয় পরিবর্তন নিয়ে আনন্দ করতে লাগল আর অন্যরা অবিচ্ছিন্ন সংশয়ের মধ্যে পড়ে গেলো, যেন বিশ্বে নিরাময়ের জন্য একটি নতুন সময় চালু করা হলো।

আর ২০ শে জানুয়ারি ২০১৬ এর ধাঁধার মধ্য দিয়ে, আমেরিকান জনগণের আবেগ অনুভুতি টুকরা টুকরা করে দেয়া হলো। এর ফলে নির্বাচন এবং এর ফলাফল উভয়ের মধ্যে পরিবেষ্টিত শিল্পকে পরিষ্কারভাবে অনুভব করা কঠিন হয়ে পড়েছে।   

পলিটিকো ম্যাগাজিনের জন্য হিলারি ক্লিনটন

অন্য যেকোনো নির্বাচনের মতই, উভয় প্রার্থীর জন্যই আমরা অনেক অনেক সুন্দর সুন্দর প্রি-আইকনিক শৈল্পিক ছবি তৈরি করেছি।  এই পলিটিকো ম্যাগাজিন কভারটি তৈরি করেছেন ট্রেসি চিং, উদাহরণস্বরূপ, এটি হচ্ছে দুটি অবিশ্বাস্য ভেক্টর ইলাস্ট্রেশনের একটি যা তিনি ডেমোক্র্যাটিক ও রিপাবলিকান ন্যাশনাল কনভেনশনের জন্য তৈরি করেছেন( তিনি একই রকম সুন্দর একটি ডোনাল্ড ট্রাম্প কভারও তৈরি করেছেন যা আপনি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন)।

Hilary Clinton Cover for Politico Magazine
পলিটিকো ম্যাগাজিনের জন্য ট্রেসি চিং-এর আঁকা হিলারি ক্লিনটন

এবং যখন একজন আর্টিস্ট দেশপ্রেমের জন্য সাহসী, আপসহীন ও আশাবাদী তুলির আঁচড় কাটতে শুরু করে, তখন অন্যান্য আর্টিস্টরাও তাঁদের অনুভুতি চেপে রাখতে অস্বীকার করে।

অ্যান্টনিয়ো আলেকজান্দ্রোভা বেশ আক্ষরিক ভাবে প্রশ্ন করেছেনঃ

"কে বিজয়ী হলো?"

একটি রোমান্টিক পার্কিং স্পটের মধ্যে অধিষ্ঠিত অবস্থায়, আমরা একটি মৃদু আলিঙ্গনের মধ্যে রাষ্ট্রপতিসুলভ আশাবাদী ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং হিলারি ক্লিনটনকে দেখতে পাই। সামনে যেন ধ্বংস বিধ্বস্ত আমেরিকান ভূদৃশ্য। একটি রহস্যময় ছায়া কিছু অস্পষ্ট বিষয়সূচি সঙ্গে নিয়ে যেন ইতস্ততঃ ঘোরাফেরা করছে।

আপনি এই কাজটিকে কিভাবে ব্যাখ্যা করবেন? আর আপনি তৃতীয় ছায়াময় ব্যক্তিটিকে কিভাবে নিবেন?

Who is the Winner Art by Antonina Alekssandrova
আন্তোনিয়া আলেকজান্দ্রোভের আঁকা কে বিজয়ী হলো?

আমি যদি ২০১৬ নির্বাচনটিকে এক কথায় ব্যাখ্যা করি, তাহলে এটা সম্ভবত হবে, “আমরা কি একই কাজ পুনরাবৃত্তি করলাম?” এটা অনেক আমেরিকানের মধ্যে একটি সাধারণ মনোবৃত্তি, এবং এটা দেখে মনে হচ্ছে আমরা একটি হারের অবস্থার মধ্যে আছি, কি ফলাফল হচ্ছে তা কোনও ব্যপার নয়।  

আমেরিকার অন্ধকারাচ্ছন্ন যুগ

কিন্তু যখন ট্রাম্প চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হলো, বর্ণনা আবার পাল্টে গেলো। একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন মনোভাব বাতাসে ভাসতে লাগলো আর মানুষ আসন্ন ভবিষ্যতের দিকে অস্পষ্ট অনুভূতি নিয়ে দাঁড়িয়ে রইলো। 

Dark Times of America তে এই অনুভূতি খুব নিখুঁতভাবে উপলব্ধি করা যায়, আন্দ্রিয়া উচিনির একটি এক রঙ্গা ভেক্টর ইলাস্ট্রেশনে।

এখানে তার প্রক্রিয়ার একটি দ্রুত বর্ণনা আছে:

এই চিত্রটি আসলে একটি রচনা থেকে নেয়া যেখানে বলা হয়েছে যে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিবেচনাধীন বিভিন্ন পলিসি অনুসারে, এই সময়টি কিভাবে আমেরিকার জন্য একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন সময় হতে পারে।
আমি আমার চোখকে শুধুমাত্র অনুভুতির দিকে আলোকপাত করেছি। এজন্যই কাজটি সম্ভবতঃ শুধুমাত্র সাদা ও কালো দিয়ে করা হয়েছে। তারপর আমি চিন্তা করেছি যে, আলো অনুপস্থিতির আসল কারন কি এবং এরপরই যেন মানুষকে বুঝাতে পারলাম যে, এই অনুপস্থিতি আসলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কারণে সৃষ্ট।

কিন্তু এই চিত্রণেই সব আছে তা ভাবার আগে, তিনি যেন এই চিন্তায় ছেদ চিহ্ন এনে দিয়েছেনঃ

এই চিত্রণের এক পাশে, আমি কিছুটা আলোর ছটা তৈরি করেছি ― যেন বলতে চাইছি যে এই আলো এখনও বাহিরে বিদ্যমান আছে। এটা হচ্ছে আমার আশাবাদী থাকার এক পন্থা!
Dark Times of America by Andrea Ucini
আন্দ্রিয়া উচিনির আঁকা ডার্ক টাইমস অব আমেরিকা

এবং এই সূক্ষ্ম বর্ণনা, আমাদের অনন্ত আশা ও ইতিবাচক থাকার পাশাপাশি বিদ্বেষ সৃষ্টির জন্য এক মৃদু অনুস্মারক, যা আমি এই চিত্রণের সবচেয়ে মূল্যবান প্রতীক বলে মনে করি।

দ্য ডিজঅ্যাপয়েণ্টার ইন চিফ

কিন্তু শুধুমাত্র রিপাবলিকান পার্টি ই সমালোচনার তাপ অনুভব করছে না। এমনকি নির্বাচনের আগে, ৪৪তম প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা একইভাবে সব পক্ষের থেকে অপরিমেয় সমালোচনা ও হতাশার মুখোমুখি হয়েছেন। 

আর্টিস্ট গোসিয়া হার্বা এই বিষয়টি তার দ্য ডিজেপয়েন্টার ইন চিফে ব্যখ্যা করেছেন।

এটা প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা সম্পর্কিত (দি ওয়াশিংটন পোস্টের) রবিবারের পত্রিকায় চলমান গল্পের সাথে প্রকাশিত হয়, এবং এতে বর্ণিত হয়েছে, কিভাবে তিনি অনেক মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী চলতে পারেন নি।

এটি একটি খুব ছোট নির্দিষ্ট সময়সীমা ছিল―দুই দিনের মত হবে। একদিন স্কেচের জন্য এবং আরেকদিন কাজ সম্পূর্ণ করার জন্য। আমি এটা অনেক ছোট্ট সময়ের মধ্যে তৈরী করেছি।

The Disappointer in Chief Art by Gosia Herba
ওয়াশিংটন পোস্টের জন্য গোসিয়া হার্বার আঁকা দ্য ডিজেপয়েণ্টার ইন চিফ

এই আবদ্ধ এবং আবদ্ধতার অনুভূতি-জাগানো ছবিতে, ওবামার মাথা ভরে শিরোনাম, প্রচারণা, প্রতিশ্রুতির জন্য চিৎকার ও আরও অনেক কিছু আছে। দর্শক কিছু করতে পারে না, কিন্তু একটা অসহায়ত্ব অনুভব করে, যেন এটাই প্রতীয়মান হয় যে, ক্ষমতা সব সময় এক জনের হাতে থাকে না।

অভিবাসন পলিসির ব্যাপারে আর্টিস্টরা

এই অদ্ভুত জিনিসটি উন্নত জাতির ক্ষেত্রেও ঘটে যাচ্ছে। এটা আসলে এমন এক অভিব্যক্তি যা বাইরের লোকদের স্বাগত জানাচ্ছে কিন্তু সত্যিকার অর্থে নয়। তাদের প্রসারিত বাহু ও স্বাগতিক হাসি আসলে জটিল ইমিগ্রেশন পলিসির সাথে অসঙ্গতিপূর্ণ।

র‍্যাডিকাল ইসলাম

আমরা এটি এমনকি বর্তমান বর্ণনাতেও দেখতে পাই। এটা অনেকের জন্য একটি বিতর্কিত বিষয়, আমরা এমন অনেককেই মুখোমুখি ও মনুষ্যত্বপূর্ণ হতে বাধ্য করছি যারা আমাদের মত দেখতে নয় অথবা একই ধর্মের অনুসরণ করে না।

আর্টিস্ট গারহার্ড হিউম্যান এই অবিশ্বাস্য রকমের কটু চিত্রটি তৈরি করেছেন যা এই বিষয়টিকে তুলে ধরেছে। র‍্যাডিক্যাল ইসলাম, হাতে ছাপা চাররঙ্গা সিল্কস্ক্রিন, এমন এক বিষয় তুলে ধরছে যা এর আগে কখনও আমরা ইসলামে দেখি নি।

গারহার্ড বলেছেনঃ

আমি আমার আর্টকে খুব বেশি ব্যাখ্যা করতে পছন্দ করি না। আমি তাদেরকে তাদের কথা বলতে দেই। বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই দর্শকের ধারনা অন্যরকম হয়ে থাকে এবং আমি তাদের উপসংহারে চুরি করে ভাগ বসাতে চাই না। 
Radical Islam Art by Gerhard Human
গারহার্ড হিউম্যানের আঁকা র‍্যাডিকাল ইসলাম

দর্শন শিল্পীদের ক্ষেত্রে একই রকম থাকে কারন আর্ট বা শিল্প একটি বিষয় ভিত্তিক বস্তু। যদিও শিরোনামের সঙ্গে মিলে যায়, তথাপিও এই চিত্রায়নের অর্থ অবশ্যই সুস্পষ্ট হিসাবে অনুভূত হতে পারে। কিন্তু অন্তর্নিহিত বিষয়টি কি, যা এখানে দেখানো হয়েছে?

এবং আমরা, একটি সমাজ হিসেবে, কিভাবে শিল্প থেকে এই অকপটতা শিখতে পারি?

অফলাইফ কমিকস - ইয়েলো সিরিজ

উষ্ণ, খোলামেলা মনের চিত্রায়নশিল্পী ইভা বি অফলাইফ কমিকসের জন্য কিছু চিত্র তৈরি করেছিলেন। তিনি বলেনঃ

আমি এই চিত্রটি অফলাইফ কমিকসের, “ইয়েলো” নামের একটা বইয়ের জন্য জন্য তৈরি করেছি, যেটা তাঁরা গতবছর প্রকাশ করেছে। বইয়ের পিছনের ধারণা হচ্ছে, ৫২ জন আর্টিস্টকে ২০১৫ সালের বিভিন্ন সপ্তাহের ঘটনাবলী বিশ্লেষণ করে তা আঁকতে বলা হয়। এটাই হচ্ছে একমাত্র বক্তব্য, যা প্রকল্প শুরুর আগে আমাদেরকে দেয়া হয়। এবং আমাকে এ ব্যপারে স্বাধীনতা দেয়া হয় যে, আমার সপ্তাহে ঘটে যাওয়া সর্বোচ্চ ঘটনাবলী থেকে আমি যা খুশি তাই আঁকতে পারবো।

বইয়ে তিনি তাঁর চিত্রায়নের স্বপক্ষে যা লিখেছেন তা নিন্মরূপঃ

অভিবাসী সংকট এই সপ্তাহের একটি অন্যতম খবর। আমার এই চিত্রটি অভিবাসীদের অচ্ছুৎরূপে প্রতীয়মান করেছে। কারণ, তাঁরা নৌকায় করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিতে এসেছে।

এখন ইউরোপিয়ানদের হাতে এই শক্তি আছে যে, হয় তাঁদেরকে সাহায্য করা অথবা তাদের আশা আকাঙ্ক্ষা নির্মূল করে দেয়া। যা আমরা বেশ কিছুদিন ধরেই মেসিডোনিয়ায় প্রবেশ করতে চাওয়া অভিবাসীদের সহিংসতার মুখোমুখি হওয়ার মধ্য দিয়ে লক্ষ্য করছি।

Offlife Comics Yellow Series by Eva Bee
ইভা বী এর আঁকা অফলাইফ কমিকস - ইয়েলো সিরিজ

এমনকি বধির কানও শক্তিশালী শব্দ শুনতে পায়। কিন্তু এটার মত একটি চিত্রায়নের পিছনে মুলত অভিবাসন সম্পর্কে আন্তরিক ও হৃদয়বান হওয়ার জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ আহবান জানানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক ইস্যুর ব্যাপারে আর্টিস্টরা

আপনি যদি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যান, তাহলে আপনার বাড়ির আঙিনার মত একইরকম রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক সমস্যার মুখোমুখি হবেন। এবং বিশ্বের সব চিত্রশিল্পীরাই তাদের কাজের মধ্য দিয়ে এসব বিষয়ে নিজস্ব অভিব্যাক্তি তুলে ধরতে সক্রিয় রয়েছে।

গ্রিটিংস ফ্রম রাশিয়া

শিল্পী বার্ট ভ্যান লিউয়েনের সাথে রাশিয়ার অন্তরঙ্গ সম্পর্ক রয়েছে। এবং তাঁর অনন্য ক্যারিকেচার স্টাইলটি যেন গ্রিটিংস ফ্রম রাশিয়ার মাধ্যমে একটি আকর্ষণীয় দৃষ্টিভঙ্গি ফুটিয়ে তুলেছে।

তিনি বলেনঃ

গ্রিটিংস ফ্রম রাশিয়া ভ্লাদিমির পুতিনের ইউরোপ এবং সারা বিশ্বের প্রতি থোরাই কেয়ার মনোভাব প্রদর্শন করছে। এটা ন্যায্য হোক বা না হোক, আমি শুধুমাত্র একজন ইউরোপিয়ান/ জার্মান হিসেবে এখানে রাশিয়ার পরিস্থিতি তুলে ধরেছি।

বাস্তবিকপক্ষে, বার্ট আমাদের যে কারো মতই, যিনি আবেগপূর্ণ বিষয়াদির সম্মুখীন হয়েছেন। তিনি আরও বলেনঃ

আমি MH17 বিপর্যয় উপলক্ষে এই ছবিটি তৈরি করেছি, এবং ভ্লাদিমির পুতিনের ক্রমাগত অস্বীকারের ভিত্তিতে, যে এই বিমান দুর্ঘটনার জন্য কয়েকটি তদন্তের পরও আসলে রাশিয়ার তেমন কিছু করার ছিলো না।
Greetings From Russia Art by Bart van Leeuwen
বার্ট ভ্যান লিউয়েনের আঁকা গ্রিটিংস ফ্রম রাশিয়া

বিখ্যাত কৌতুকও অনেক সময় অবিশ্বাস্য রকমের যন্ত্রণা থেকে তৈরি হয়, শিল্পও এক্ষেত্রে আসলে কোনও ব্যতিক্রমী কিছু নয়।  মিসাইলের পাশে দাঁড়িয়ে পুতিনের সেলফি তোলার “স্বগত অংগভঙ্গি” যেন এই মনোভাবই প্রকাশ করছে যে তিনি যেন অনেক দূর থেকে প্রশ্ন করছেন “আসলেই কি এমন কোনও ঘটনা ঘটেছে?”

বুলফাইটিং

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা বিশ্বজুড়ে প্রায়ই মানুষ যার মুখোমুখি হচ্ছে, আর তা হচ্ছে সাধারণ মানুষ ও সরকার বা বড় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিদ্যমান মনোভাব বা দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্য।

রিকার্ডো নানেৎয সুয়ারেজের এই ষাঁড়ের লড়াই বা বুল ফাইটিং চিত্রটি দুই ধরনের অর্থবোধক। রিকার্ডো নীচের বর্ণনায় এই চিত্রের একটি প্রতীকী ব্যখ্যা প্রদান করেছেনঃ

এই ছবিতে আমি আসলে একটি সুন্দর চিত্র তৈরি করতে চেয়েছি যা একটি সতর্ক বার্তাকে আড়াল করেছে। চিত্রের মহিলাটি ক্ষমতার প্রতীক। সে সমাজের উঁচু শ্রেণীর প্রতিনিধিত্ব করছে। তাঁর পেছনে থাকা ফল এবং খাদ্যসামগ্রী যেন অর্থ-বিত্তের প্রতীক। সে ষাঁড়ের আসার অপেক্ষায় আছে। ষাঁড়টি অনেক বড় এবং শক্তিশালী, যদিও সমর্পিত ও নিয়ন্ত্রিত। ষাঁড়টি যেন কর্মজীবী মানুষের প্রতীক। তাঁর চারপাশে থাকা ফলগুলো মহিলাকে খুশি করতেই আনা হয়েছে। সে একহাতে ষাঁড়টির মাথা স্পর্শ করেছে এবং তাঁর আনা খাদ্য সামগ্রীর প্রশংসা করছে। যদিও অন্য হাতে একটি খঞ্জর ধরে রেখেছে, এবং খাদ্যসামগ্রী বুঝে পাওয়ার পরই সে ষাঁড়টিকে হত্যা করবে।

তাঁর দেশ কলাম্বিয়ার রাজনীতির একটি সামগ্রিক চিত্র, ষাঁড়টি হচ্ছে জনগণ এবং মহিলাটি হচ্ছে তাঁদের সরকার।

বুল ফাইটিং হচ্ছে একটি খেলা যেখানে অনেক মানুষের অংশগ্রহন থাকে না কিন্তু আয়োজনকারীরা সাধারনত সমাজের উপরের স্তরের লোক। সর্বশেষ যখন এই খেলা হয়েছিলো, তখন হাজারেরও বেশী লোক কিছু মুষ্টিমেয় মানুষের বিনোদনের জন্য একটি নিরপরাধ প্রানীকে এভাবে হত্যার বিরোধিতা করেছিলো।

শেষে, সরকার সংখ্যা গরিষ্ঠ মানুষের মতামতের সঙ্গে ঐক্যমত পোষণ করে তাঁদের নিরাপত্তায় হাজার খানেক পুলিশ মোতায়ন করেছিলো, যেখানে শহরের অন্যান্য অংশগুলো উপেক্ষা করা হয়েছে, যেসব জায়গায় সম্ভবত পুলিশ প্রয়োজন ছিলো। আবারো, এ কথাই প্রমাণিত হলো যে ক্ষমতা এবং টাকাই হচ্ছে শেষ কথা।

Bullfighting Illustration by Ricardo Nunez Suarez
রিকার্ডো নানেৎয সুয়ারেজের আঁকা ইলাস্ট্রেশন বুলফাইটিং

এবং ষাঁড়টিকে যত শক্তিশালী এবং তেজস্বী বলেই মনে হউক না কেন, সে সবসময় তার মনিবের করুনায় থাকে, রিকার্ডোর চোখে দেখা একটি মর্মস্পর্শী বাস্তবতা।

মসকিউটো

অবশ্য বেশ মোটা টাকার ব্যবসার সঙ্গে রাজনৈতিক যোগাযোগও শিল্পীদের কাছে একটি অন্যতম বিষয়। যখন কোনও শক্তিশালী সংস্থা তাঁদের নীতি পরিবর্তনে হাত দেয়, তখন খেলাধুলা থেকে শুরু করে জলবায়ু পরিবর্তন সব জায়গায় গভীরভাবে এর প্রভাব পড়ে।

আলেকজান্দ্রোভ টডোরোভিকেমস্কিউটোতে দেখা যাচ্ছে একটি বিরাট মশা যেন পৃথিবীর প্রানশক্তি শুষে নিয়ে যাচ্ছে।

“মস্কিউটো হচ্ছে ছোট ছোট ড্রয়িং সিরিজের একটি অংশ যা আমি ২০১৫ সালে শুরু করেছিলাম। এইসব চিত্রে একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে মূল চরিত্রে দেখানো হয়েছে। আমি এই চরিত্রটি একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ের ব্যাপারে অনুভূতি প্রকাশের জন্য ব্যবহার করেছি, এটাকে রূপান্তর করেছি এবং বিকৃত করেছি একটি জোরালো বাস্তব কাহিনী বলার জন্য!
এই চিত্রে দেখানো হয়েছে যে রাজনিতিবিদরা অনেকটা রক্ত-চোষা প্রাণীর মত, "রক্ত" খাওয়ার জন্য পৃথিবীতে একের পর এক হত্যাকাণ্ড সংগঠন করে যাচ্ছে। এবং তার সম্পদের ভাবমূর্তি যতটা সম্ভব প্রসার করে যাচ্ছে। আমি এখানে মানুষের রসিকতা ও পপ সংস্কৃতির উদাহরণ ব্যবহার করেছি। আমি এই গল্পটি এমন উপায়ে বর্ণনা করতে চেয়েছি যাতে তাঁরা বর্তমান অবস্থাটি বুঝতে পারে, যখন বৃহত্তম পরাবাস্তবতা এবং কিছু পরিচিত চিহ্নই আমার প্রতীকী ভাষার একমাত্র অবলম্বন।
Mosquito Illustration by Aleksandar Todorovic
আলেকজান্দ্রোভ টডোরোভিকের আঁকা মস্কিউটো

যখন কোন ভুল হয়, তখন আমরা প্রায়ই অন্যকে দোষারোপ করি—এটা আমাদের রাগ এবং হতাশার একটি বহিপ্রকাশ। আলেকজান্দ্রোভ এটা একটি প্রধান রক্তচোষা চরিত্রের মাধ্যমে রাজনৈতিক পৃথিবীর প্রতিকায়ন করে খুব মর্মস্পর্শীভাবে তুলে ধরেছেন। 

বড় রাজনৈতিক সমীকরণ, অর্থ এবং ফুটবল

এমনকি খেলাধুলাও রাজনৈতিক পরিবর্তনের শিকার হতে পারে।

চিত্রশিল্পী জেকাব চিচেকি তার চিত্রে ফুটবল এবং রাজনীতির ভিতরের প্রতীকী সংযোগ তুলে ধরেছেন।

এই ইলাস্ট্রেশনটি ফুটবল এবং রাজনীতির ভিতরকার সংযোগ সম্পর্কে। আমি এই চিত্রটি ফুটবল ম্যাগাজিন কোপালনিয়ার জন্য তৈরি করেছি। এটা একটি রচনাকে চিত্রায়ন করেছে যেখানে দেখানো হয়েছে অবৈধ উৎস থেকে আসা টাকা কীভাবে ফুটবলকে নিয়ন্ত্রণ করে। সাংবাদিকরা যখন কোনও পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে, তখন তারাও এর উৎপত্তিও নির্দেশ করে এবং কেন বর্তমান অবস্থার পরিবর্তন করার জন্য কেউ নেই তাও ব্যখ্যা করে।
Big Politics Money and Football by Jakub Cichecki
জেকাব চেচেকির আঁকা পলিটিক্স, মানি এন্ড ফুটবল

আমাদের জীবনের প্রতিটি পরতে প্রভাব বিস্তার করার ক্ষমতা রাজনীতির আছে। আমরা যা খাই তা থেকে শুরু করে খেলা যা আমরা দেখি, এমন কোনও ক্ষেত্র নেই যেখানে এর অনুপ্রবেশ নেই। যদিও চতুরতার সাথে আঁকা হয়েছে, তারপরও এই চিত্রে মর্মান্তিকভাবে দেখানো হয়েছে কীভাবে আমাদের দৈনন্দিন নিরপরাধ কার্যাবলীও ব্যবসায়িক মুনাফা এবং রাজনীতির কাছে নিষ্পেষিত হচ্ছে। 

মি এন্ড ইইউ

বলা বাহুল্য, ব্রেক্সিটের ব্যাপারে সারা বিশ্ব যেন শোরগোল পড়ে গিয়েছিলো। এবং ইইউ থেকে ইউকের বেরিয়ে যাবার ব্যাপারে দ্বিধা-সংশয় ইউকের আর্টিস্টদের জন্য একটি দারুন বিষয় ছিলো।

চেস্টার হোল্ম, যিনি মি এন্ড ইউ চিত্রটি তৈরি করেছেন এই বিষয়ে কিছু আবেগপূর্ণ কথা বলেছেন:

রাজনীতির সাথে আমার সংযোগ কিছুটা মজার, আমি আবেগিক দিক থেকে এ ব্যপারে যতটা সম্ভব চোখ বন্ধ করে রাখতে চেষ্টা করেছি। এই মুহূর্তে সবকিছুই খুব ঘোলাটে এবং হতাশাপূর্ণ মনে হচ্ছে যা আমাদের দৈনন্দিন সৃজনশীল কাজকর্মের উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। 
এই ইলাস্ট্রেশনের পিছনের ব্যপারটি ততটা মারকুটে এবং অভিযোগপূর্ণ নয়, কিন্তু এই ভোটাভুটির পিছনে আছে অত্যুক্তি, কপটতা, মিথ্যা, এবং আমাদের বনাম তাঁদের মানসিকতা, যেটা বিগত কয়েক বছরে অনেক রাজনৈতিক বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। 

তিনি আরও বলেছেন:

আমি এই ভোটাভুটি বর্ণনা করতে অনেক চিন্তা-ভাবনা করে যে ফলাফল পেয়েছি তা অনেকটা প্রবাদের মত: 'নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করা।'
Me and EU Illustration by Chester Holme
চেস্টার হোল্মের আঁকা মি এন্ড ইউ।

আর চেস্টার এখানে খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় তুলে ধরেছেন। আজকের যুগে, রাজনৈতিক দ্বন্দের কারণে বিশৃঙ্খলা অনুভব করা অস্বাভাবিক নয়। "বিকল্প তথ্য" শব্দটি দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে, যখন রাজনৈতিক বিরোধিতার ব্যাপক উন্মাদনা মানুষকে পরিবার, বন্ধু-বান্ধব এবং প্রতিবেশী থেকে "বিচ্ছিন্ন" করে দিচ্ছে।

ব্রেক্সিট, ফ্রি ফ্রম চেইনস

কিন্তু সবাই ব্রেক্সিটের কারণে বিস্মিত নয়। আর্টিস্ট ইলিয়াস সাউনাস এর স্বপক্ষেই ব্রেক্সিট ফ্রি ফ্রম চেইনস চিত্রায়নটি তৈরি করেছেন। 

এটা হচ্ছে একটি রাজনৈতিক চিত্রায়ন যা আমি ব্রেক্সিটের জন্য তৈরি করেছি, এটা আমার কাছে অত্যন্ত প্রশংসনীয় এবং আমি এর পূর্ণ সমর্থন করি। এই চিত্রণটি বিখ্যাত প্রমেথিউয়াস কিংবদন্তী টাইটানের উপর ভিত্তি করে তৈরি, যিনি জিউস এবং তার ঈগল দ্বারা ধৃত হয়েছিলেন। এবং ঈগলটি তার যকৃত ভক্ষন করেছিলো।

আমার দৃষ্টিতে, ঈগলটি উচ্চ শ্রেনীর জার্মান ব্যাক্তিবর্গের প্রতিনিধিত্ব করে (রাজনীতিবিদ্গন), যেটা ইউরোপিয়ান জাতিগুলোকে তাঁদের আগ্রাসী আর্থিক আচরণ দ্বারা ধ্বংস করছে। ব্রেক্সিটের মাধ্যমে গ্রেট ব্রিটেন যা (এস্তেনা হিসেবে চিহ্নিত), ইইউ / জার্মান আমলাতন্ত্রের বিরুদ্ধে তার স্বাধীনতা দাবি করতে দাসত্বের শৃঙ্খল ছিন্ন করেছে।

Brexit Free From Chains Illustration by Ilias Sounas
ইলিয়াস সাউনাসের আঁকা চিত্রণ ব্রেক্সিট, ফ্রি ফ্রম চেইনস

ইলিয়াস এর দৃষ্টান্তটি, একটি কাহিনীর মধ্য দিয়ে একটি আকর্ষণীয় দৃষ্টিভঙ্গি ফুটিয়ে তুলেছে যা আমরা প্রায়ই দেখতে পাই না। এটা হচ্ছে শিল্প মাধ্যমে পুরানো বিষয়ের উপর আলোকপাত করে, আমরা একজন অন্যজনকে নতুন কিছু শেখাতে পারি।

পরিশিষ্ট

শিল্প আমাদেরকে শিখায় আমরা যেন রাজনীতির সাগরে সাবধানে চলাফেরা করি অথবা আবেগের সাথে আমাদের ধারনাকে তুলে ধরতে পারি। আপনি কোন রাস্তা বেছে নিবেন, সেটা সম্পূর্ণই আপনার নিজস্ব ব্যপার। কিন্তু আপনি যদি এই বিষয়টি শিল্পের মাধ্যমে তুলে ধরেন, তাহলে এটা কয়েক প্রজন্ম ধরে চলতে থাকবে।

বর্তমান সময়ের চিত্র তুলে ধরতে রাজনৈতিক চিত্রায়ন হতে পারে একটি জানালার মত। 

আপনার কি এমন কোনও ইলাস্ট্রেশন বা চিত্রণ আছে যা আপনার রাজনৈতিক মতাদর্শ প্রকাশ করে? কমেন্টে এটা আমাদের সাথে শেয়ার করুন! অথবা এডোবি ইলাস্ট্রেটরে একটি মজার পোস্টার প্রজেক্ট তৈরি করুন, ওবামা অনুপ্রাণিত আইকনিক পোস্টারের মত, যেমনটি এখানে দেখা যায়: Create an Inspirational Vector Political Poster

আমি তাদের কাজ প্রদর্শনের জন্য আমাকে অনুমতি দেওয়া সমস্ত শিল্পীদের একটি উষ্ণ ধন্যবাদ দিতে চাই। তাদের অবাক করা পোর্টফলিও দেখতে নীচের লিঙ্কগুলো দেখুন:

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Looking for something to help kick start your next project?
Envato Market has a range of items for sale to help get you started.